১০ ডিসেম্বর থেকে ঈদে মিলাদুন্নবী ও বিজয় দিবস উপলক্ষে মুসলিম হল প্রাঙ্গনে ৮ দিনব্যাপি বইমেলা ও চিত্র প্রদর্শনী

nnn

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ:) ও মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে ০৮ (আট ) দিন ব্যাপী বইমেলা ও চিত্র প্রদর্শনী আয়োজন করছে স্বেচ্ছাসেবী সামাজিক সংগঠন আনজুমানে খোদ্দামুল মোসলেমীন কেন্দ্রীয় ট্রাস্টি বোর্ড। এ উপলক্ষে আজ ৫ ডিসেম্বর সোমবার দুপুর ১২ টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আনজুমানে খোদ্দামুল মুসলেমীন এর বইমেলা প্রস্তুতি কমিটি। মেলা প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব সউম আব্দুস সামাদ লিখিত বক্তব্যে বলেন, বই মানুষের জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধি করে, একমাত্র বই-ই পারে মানুষকে শ্রেষ্ঠত্বে উন্নীত করতে। বইজ্ঞান অর্জনের প্রধান মাধ্যম । জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধি করতে হলে অবশ্যই বই পড়তে হবে। একটি ভাল বই ঘুমন্ত বিবেক জাগিয়ে তোলে। ভাল লেখকের মানসম্মত বই পারে মানুষের জীবনকে বদলে দিতে পারে। তথ্য-প্রযুক্তির কারণে বর্তমান নতুন প্রজন্মের চিন্তা-চেতনা সংকীর্ণ হয়ে যাচ্ছে। প্রযুক্তির ব্যবহারের ফলে তারা হয়ে পড়ছে বইবিমুখ। ফলে তাদের কল্পনা ও চেতনা শক্তি দুর্বল হয়ে যাচ্ছে। তাই বর্তমান প্রজন্মকে বই মুখি করতে এবং  মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ইসলামের শাশ্বত মূলধারার সাথে পরিচিত করতে বইমেলা ও চিত্র প্রদর্শনীর গুরুত্ব অপরিসীম। তিনি আরও বলেন, ধর্মীয়, সামাজিক, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আনজুমানে খোদ্দামুল মুসলেমীন ট্রাস্টি বোর্ড (যার নিবন্ধন নং- ঈঐ-ঝ৪৭১(৫৩)দীর্ঘ দিন যাবত বিভিন্ন গঠনমূলক কর্মসূচির মাধ্যমে একটি সুন্দর সমাজ প্রতিষ্ঠার লক্ষে কাজ করে যাচ্ছে। তারই ধারাবাহিকতায় আগামি ১০ ডিসেম্বর থেকে ১৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত আট দিনব্যাপি বইমেলা, চিত্র প্রদর্শনী, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চট্টগ্রাম মুসলিম হল ও হল প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত হবে। বইমেলা দুপুর ১২ টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে। মেলা মূল অনুষ্ঠান দুপুর ২.৩০মি: থেকে শুরু হয়ে ২টি অধিবেশনে রাত ৮.০০টা পর্যন্ত চলবে। প্রথম অধিবেশন বিকাল ২.৩০ মিনিট থেকে বিকাল ৩.৫০মিনিট এবং দ্বিতীয় অধিবেশন বিকাল ৪.১৫ মিনিট থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলবে। কর্মসূচির মধ্যে থাকছে পবিত্র কোরআন তিলাওয়াত, হামদ, নাতে রাসূল (দ:) পরিবেশন, রাসূল (দ:)’র শানে নিবেদিত কবিতা পাঠের আসর, দেশাত্মবোধক সংগীত পরিবেশন, নতুন বইয়ের প্রকাশনা উৎসব, মোড়ক উন্মোচন, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ:) ও মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সম্পর্কিত আলোচনা সভা, মহান মুক্তিযুদ্ধ ও ইসলামের ইতিহাস-ঐতিহ্যের দুর্লভ চিত্র প্রদর্শনী। এতে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সলর ও অধ্যাপক, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষ, অধ্যাপক, কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ, মুহাদ্দিস, সমাজের জনপ্রিয় জনপ্রতিনিধি, চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত বিভিন্ন পত্রিকার সম্পাদক, চট্টগ্রামের সিনিয়র সাংবাদিকবৃন্দ, বুদ্ধিজীবি, ব্যবসায়ী নেতাসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনায় অংশগ্রহণ করবেন। তিনি উক্ত মহতী কর্মসূচি সফলের জন্য চট্টগ্রামের সর্বস্তরের জনসাধারণ বিশেষত: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন, ওয়াসা, বিদ্যুৎ বিভাগ, পুলিশ প্রশাসনসহ সকল আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও দপ্তরের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।  উল্লেখ্য বই মেলার স্টল বরাদ্দের জন্য ০১৮১৩-৯৫৪৩৬৪, ০১৮১১-৫৯৭২৭৭, ০১৮১২-৭২২৫৯২ নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, আনজুমানে খোদ্দামুল মুসলেমীন ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুহাম্মদ সাহাব উদ্দীন চৌধুরৗ, মাওলানা এম এ মতিন, শায়খুল হাদিস কাজী মঈনুদ্দীন আশরাফী, সাংবাদিক স.ম ইব্রাহিম, নাছির উদ্দিন মাহমুদ, মাষ্টার আবুল হোসাইন, করিম উদ্দীন নূরী, আমান উল্লাহ আমান সমরকন্দি, সঞ্জরী পাবলিকেশনের মুহাম্মদ আবু তৈয়্যব চৌধুরী, জিএম শাহাদত হোসাইন মানিক, আলমগীর হোসেন, কামাল হোসেন ছিদ্দিকী, মোঃ ফরিদুল ইসলাম, হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদ, নাজিম উদ্দিন খান, খোরশেদুল ইসলাম সুমন, দিদারুল ইসলাম কাদেরী, মাছুমুর রশিদ কাদেরী, মিজানুর রহমান, আলী হোসেন সাগর, জিএম. মামুন, আমির হোসেন, জয়নাল আবেদীন, মঈনুদ্দীন কাদেরী, আতিকুর রহমান, আবুল মনসুর, শাহরিয়ার আদনান প্রমুখ।

Facebooktwittergoogle_pluspinterestlinkedin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *