Latest

হাটহাজারীস্থ ফটিকা গ্রামে পৈত্রিক বসতভিটা জবর দখল করে অবৈধ ঘর নির্মাণ ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষপাতদুষ্ট আচরণের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

asচট্টগ্রাম জেলার হাটহাজারী পৌরসভার ফটিকা গ্রামে বসতভিটা জবর দখলে স্থানীয় উপজেলা প্রশাসনের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ তুলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সম্মেলন কক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলনের অয়োজন করে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যগণ। সোমবার সকাল ১১টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী পরিবারের পক্ষে মো: শাহরিয়ার লিখিত বক্তব্যের মাধ্যমে ঘটনার বর্ণনা উপস্থাপন করেন। এতে উপস্থিত ছিলেন সংবাদ সম্মেলনের আয়োজক মো: হারুন, মো: ইউসুফ, মো: শাহ আলম ছুট্টু, মো: নুরুল ইসলাম। গত ৫ মে সন্ধ্যার সময় তাদের বসত ঘরে আগুন দিয়ে প্রতিপক্ষ শাহ আলম পাঁচটি পরিবারকে নিঃস্ব করে দিয়ে বসতভিটা অবৈধ দখলে নিয়ে ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করেন বলে বক্তব্যে তুলে ধরেন। আমরা বাধা প্রদান করলে আমাদের উপর দফায় দফায় হামলা চালায়। পরবর্তী সময়ে ভুক্তভোগীগণ তাদের বসত ভিটায় পোড়া অংশে ঘর নির্মাণ করতে চাইলে শাহ আলম গং তাদের উপর হামলা চালিয়ে আহত করার দাবি করেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে হাটহাজারী থানায় মামলা দায়ের করেন বলে জানান। (মামলা নং-১৯১)। উক্ত মামলায় বিবাদীগণকে পুলিশ গ্রেফতার পূর্বক হাজতে প্রেরণ করেন। পরবর্তীতে জামিনে বের হয়ে এসে ক্ষুব্দ হয়ে আমাদের উপর জোরজুুলুম ও হামলা করার পায়তারা চালায়। উক্ত বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে লিখিত অভিযোগ দিলে তিনি আমলে নিয়ে দলিলাদি বিবেচনা করেই সরেজমিন পরিদর্শনে হাটহাজারী সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে পরিমাপ করার নির্দেশ প্রদান করেন এবং প্রতিপক্ষ শাহ আলমকে শুনানির দিন ধার্য তারিখ পর্যন্ত কাজ বন্ধ রেখে কোন রকম গোলযোগ সৃষ্টি না করার কড়া নির্দেশ দেন। তদনুযায়ী সহকারী কমিশনার আগামী ২৮শে সেপ্টেম্বর তারিখে শুনানির দিন ধার্য করে উভয়কে নোটিশ প্রদাণ করেন। পরবর্তীতে বারবার রাতের আধারে সন্ত্রাসী ব্যস্টনির মাধ্যমে নালিশী ভিটার পোড়া অংশে শাহ আলম গং জোরপূর্বক ঘর নির্মানের কাজ করলে প্রতিকার চেয়ে এডিএম কোর্টে মিচ মামলা দায়ের করা হয়। (মামলা নং-৩৬৫/২০১৬)। বিজ্ঞ আদালত মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তপশীলোক্ত নালিশী ভিটায় স্থিতাবস্থা বজায় রাখার জন্য স্থানীয় থানাকে নির্দেশ দেন। উল্লেখ্য নালিশী সমূদয় সম্পত্তি নিয়ে প্রতিপক্ষ শাহ আলম গং এর বিরুদ্ধে ২০০৮ সাল থেকে দেওয়ানী আদালতে মামলা চলমান রয়েছে বলে জানান। (মামলা নং-৫১৭/২০০৮)। সংবাদ সম্মেলনে হাটহাজারী পৌর সহায়ক কমিটির সদস্য জাফর মেম্বার ও স্থানীয় মো: শুক্কুর এর বিরুদ্ধে পক্ষপাতমূলক অসদাচরণের গুরুতর অভিযোগও তুলেন। সর্বশেষ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফছানা বিলকিছ এর বিরুদ্ধে কোর্টের নির্দেশনা অগ্রাহ্য করার অভিযোগ তুলে বলেন গত ৫ সেপ্টেম্বর সকাল ৯ ঘটিকায় শাহ আলম গং নালিশী বসতভিটার পোড়া অংশে পুনরায় প্রকাশ্যে ঘর নির্মাণ করতে গেলে তৎক্ষণাৎ পুলিশ ব্যবস্থা গ্রহণ পূর্বক কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেয়। কিন্তু প্রায় ২ ঘন্টা মত কাজ বন্ধ থাকার পর হঠাৎ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উক্ত জায়গায় উপস্থিত হয়ে প্রতিপক্ষ শাহ আলম গংকে ঘর নির্মাণের কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দেন। আমরা ইউএনও মহোদয়ের হটকারী সিদ্ধান্ত দেখে হতবিহবল হয়ে পড়ি। তখন ইউএনও মহোদয়কে বিজ্ঞ এডিএম কোর্টের নির্দেশনা সম্পর্কে অবহিত করলে তিনি তা অগ্রাহ্য করেন এবং ইউএনও মহোদয়ের উক্ত আদেশ আইন সঙ্গত কিনা, তিনি উর্দ্ধতন কোন কর্তৃপক্ষ হতে প্রাপ্ত সর্বশেষ কোন আদেশ বলে প্রতিপক্ষকে কাজ সম্পন্ন করিতে দিলেন তাহা মাননীয় ইউএনও এর নিকট জানতে চাইলে তিনি কোন উত্তর দেন নি বলে জানান। আয়োজকপক্ষ এইও বলে ইউএনও বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেন তিনি দীর্ঘ ২ থেকে ৩ ঘন্টা যাবত সেখানে অবস্থান থেকে পাকা ঘরের ছাদ ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন করেন। তারা প্রশ্ন রেখে বলেন, তিনি এডিএম কোর্টের নির্দেশনাকে কোন ক্ষমতা বলে অমান্য করলেন এবং যেখানে নিজেই পরিমাপের জন্য সহকারী ভূমি কমিশনারকে নির্দেশ দিলেন তদনুযায়ী সহকারী ভূমি কমিশনার ২৮ সেপ্টেম্বর শুনানির দিন ধার্য্য করে উভয়কে নোটিশ প্রদান করেন। অথচ ইউএনও মহোদয় তিনি নিজেই নিজের গৃহিত পদক্ষেপের বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন। সংবাদ সম্মেলন থেকে সরকারি সংশ্লিষ্ট দপ্তরের দৃষ্টি আকর্ষণ করে উপস্থাপিত অভিযোগের ভিত্তিতে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণের আবেদন জানান আয়োজনকারীরা।

facebooktwittergoogle_pluspinterestlinkedin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *